ভারতবর্ষ গল্প প্রশ্ন উত্তর। Class 12 Bharatbarsha Golpo Question Answer Most Important

ভারতবর্ষ গল্প প্রশ্ন উত্তর। উচ্চমাধ্যমিক এর বাংলা বিষয়ের ভারতবর্ষ ছোটো গল্প থেকে কিছু গুরুত্বপূর্ণ ছোটো প্রশ্ন ও উত্তর এখানে দেওয়া হল। ভারতবর্ষ গল্প প্রশ্ন উত্তর। সৈয়দ মুস্তাফা সিরাজের লেখা এই ছোটো গল্পে একটি ছোট্ট বাজারের মাধ্যমে সমগ্র ভারতবর্ষের এক অনবদ্য ছবি তুলে ধরা হয়েছে। এই গল্প থেকেই খুব গুরত্বপূর্ণ কিছু প্রশ্ন ও তার উত্তর এখানে দেওয়া হল ( ভারতবর্ষ গল্প প্রশ্ন উত্তর )। এখানে যেসব প্রশ্ন দেওয়া হয়েছে তার বাইরেও কোনো প্রশ্নের উত্তর জানতে চাইলে, নিচের কমেন্ট বক্সে লিখে জানাতে পার। এছাড়াও পড়াশুনা নিয়ে যেকোনো সাহায্যের জন্য আমাদের কন্টাক্ট ফর্মের মাধ্যমে জানাতে পার।

ভারতবর্ষ গল্প প্রশ্ন উত্তর

১। “বাজারে বিদ্যুৎ আছে”- বাজারে আর কি কি আছে?

👉👉 বাজারে রয়েছে তিনটি চায়ের দোকান, দুটো সন্দেশের দোকান, তিনটি পোশাকের, একটা মনোহারি ও দুটি মুদিখানার দোকান। রয়েছে একটা আড়ত , একটা হাস্কিং মেশিন ও তার পেছনে রয়েছে একটা ইটভাটা।

২। ভারতবর্ষ গল্পে কোন সময়ের কথা উল্লেখ করা হয়েছে ?

👉👉 ভারতবর্ষ গল্পে শীতকালের কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

৩। ফাঁপি কাকে বলে ? (HS 2019)

👉👉 রাঢ় বাংলায় জাঁকােলা শীত যখন বৃষ্টিতে ধারালো হয়, তখন ভদ্রলোকেরা তাকে বলে পৌষে বাদলা আর ছোটলোকেরা বলে ডাওর। আর বৃষ্টির সঙ্গে বাতাস জোরালো হলে তাকে বলে ফাঁপি।

৪। “সেই দুরন্ত শীতের অকাল দুর্যোগে গ্রামের ঘরে বসে কারোর সময় কাটে না” – সময় কাটানোর জন্য মানুষ কি করে?

👉👉 দুরন্ত শীতের অকাল দুর্যোগে গ্রামের মানুষ সময় কাটানোর জন্য সভ্যতার ছোটো উনুনের পাশে হাত পা সেঁকে নিতে চলে আসে।

৫। লেখকের মতে সভ্যতার ছোটো উনুনটি কি?

👉👉 লেখকের মতে সভ্যতার ছোটো উনুনটি হল চায়ের দোকানের উনুন।

৬। “এই টুকুই যা সুখ ” – কোন সুখের কথা বলা হয়েছে?

👉👉 প্রচণ্ড শীতের অকাল বর্ষণে গ্রামের লোকেরা চায়ের দোকানে এসে একটু হাত পা সেঁকে যে সুখ পায়, এখানে সেই সুখের কথা বলা হয়েছে।

৭। “সেই সময় এল এক বুড়ি” – বুড়ির অবয়ব কেমন ছিল?

👉👉 প্রাকৃতিক দুর্যোগের মধ্যে চা দোকানে চা খেতে আসা বুড়িটি ছিল কুঁজো ও থুত্থুরে। তার ছিল রাক্ষুসী চেহারা ও এক মাথা সাদা চুল।

৮। বুড়ির পোশাক আশাক কেমন ছিল ?

👉👉 বুড়ির পরনে ছিল একটা ছেঁড়া নোংরা কাপড় , গায়ে জোড়ানো ছিল একটা চিটচিটে তুলোর কম্বল এবং তার এক হাতে ছিল বেঁটে লাঠি।

৯। বুড়ির মুখটা কেমন ছিল ?

👉👉 বুড়ির মুখটা ছিল ক্ষয়িত ও খর্বুটে । তার মুখে প্রকট ছিল সুদীর্ঘ আয়ুর চিহ্ন।

১০। “সেটাই সবাইকে অবাক করেছিল” – কোন ঘটনা সবাইকে অবাক করেছিল? (HS 2018)

👉👉 দুর্যোগের মধ্যে বুড়ি কীভাবে বেঁচে আছে এবং হেঁটে দোকানে এসেছে তা ভেবেই দোকানের সবাই অবাক হয়েছিল ।

ভারতবর্ষ গল্প প্রশ্ন উত্তর

১১। “বুড়ি ক্ষেপে গেল” – কোন কথা শুনে বুড়ি ক্ষেপে গিয়েছিল ?

👉👉 চায়ের দোকানের লোকেরা চেঁচিয়ে বুড়ির উদ্দেশ্যে বলেছিল ‘ এই বাদলায় তেজি টাট্টুর মতন বেরিয়ে পড়েছে ‘ – একথা শুনে বুড়ি ক্ষেপে গিয়েছিল।

১২। “বোঝা গেল বুড়ির এ অভিজ্ঞতা প্রচুর আছে” – বুড়ির কোন অভিজ্ঞতা ছিল ?

👉👉 বুড়ি বটতলায় গিয়ে গুড়ির গায়ে খোঁদলে পিঠ ঠেকিয়ে পা ছড়িয়ে শিকড়ের উপর বসল। এটা দেখে বোঝা গেল গাছের গুঁড়ির কাছে শিকড়ের উপর কীভাবে বসতে হয় সেই বিষয়ে বুড়ির প্রচুর অভিজ্ঞতা আছে।

১৩। কাকে কেন বৃক্ষবাসিনী বলা হয়েছে ?

👉👉 সৈয়দ মুস্তাফা সিরাজের লেখা “ভারতবর্ষ” গল্পে উক্ত বুড়ি বটগাছের গুঁড়ির খোঁদলে যেভাবে স্বচ্ছন্দে পিঠ ঠেকিয়ে বসে, সেই দেখে তাকে বৃক্ষবাসিনী বলে মনে করা হয়েছে।

১৪। “সবাই আবিষ্কার করল” – সবাই কি আবিষ্কার করল ?

👉👉 ‘ভারতবর্ষ’ গল্পে পৌষে বাদলা যেদিন ছাড়ে , সেদিন সকল গ্রামবাসী আবিষ্কার করে বৃদ্ধা ভিখারী বুড়িটি যে বটগাছের গুঁড়ির খোঁদলে পিঠ ঠেকিয়ে বসে ছিল, সেখানে চিত অবস্থায় নিঃসাড় অবস্থায় পড়ে আছে।

১৫। “হঠাৎ বিকেলে এক অদ্ভুত দৃশ্য দেখা গেল”- দৃশ্যটি কি ?

👉👉 ভারতবর্ষ গল্পে দেখা যায় বিকেলবেলায় মুসলমান পাড়ার লোকেরা বুড়ির পরিত্যক্ত মৃতদেহ চ্যাংদোলা করে নিয়ে আসছে। তারা আরবি মন্ত্রও পড়ছে। প্রশ্নে এই দৃশ্যটিকে অদ্ভুত বলা হয়েছে।

১৬। ‘ আমি স্বকর্নে শুনেছি ‘ – কে কী শুনেছে ?

👉👉 ভারতবর্ষ গল্পের একজন সাধারণ গ্রামবাসী ফজলু শেখ মৃত্যু পথযাত্রী বৃদ্ধ ভিখারীকে স্বকর্নে ‘ লা – ইলাহা – ইল্লাল্লা ‘ বলতে শুনেছিলেন।

১৭। ” তারপরই দেখা গেল এক অদ্ভুত দৃশ্য ” – কি দেখা গেল ?

👉👉 ভারতবর্ষ গল্পে গ্রামের সকলের মধ্যে বুড়ির মৃতদেহটি নিয়ে বিবাদ যখন চরমে সেই সময় হটাৎ দেখা যায় মৃতদেহটি নড়ছে এবং নড়তে নড়তে উঠে বসার চেষ্টা করছে।

১৮। পৌষে বাদলা সম্পর্কে গ্রামের ডাকপুরুষের বচনটি কি ?

👉👉 পৌষে বাদলা সম্পর্কে গ্রামের ডাকপুরুষের বচন টি হল – ‘ শনিতে সাত, মঙ্গলে পাঁচ, বুধে তিন বাকি সব দিন দিন ‘।

১৯। ‘ বিজ্ঞ চৌকিদারের পরামর্শ মানা হল ‘ – চৌকিদারের পরামর্শ মতো বুড়ির শবদেহকে কী করা হল ?

👉👉 চৌকিদারের পরামর্শ মতো মাঠ পেরিয়ে দুমাইল দূরের শুকনো নদীর চড়ায় বাঁশের চ্যাংদোলায় ঝুলিয়ে নিয়ে গিয়ে চ্যাংদোলা সহ বুড়ির দেহকে ফেলে দিয়ে আসা হল।

২০। ‘ চৌকিদার হ্যাঁ করে দেখছে ‘ – চৌকিদার হ্যাঁ করে কি দেখছে ?

👉👉 চৌকিদার হ্যাঁ করে দেখছে বুড়ির মৃতদেহটা নড়ছে , নড়তে সে উঠে বসার চেষ্টা করছে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *